দই

কমনসেন্স এর ঘাটতি (জিয়া)

আমার বন্ধুরা প্রায় সবাই বলে আমার কমনসেন্স এর ঘাটতি আছে। এমন কিছু ঘটনা যেগুলো শেয়ার করার মত।

বিশেষ কারণে তখন আমি প্রায় মাস খানেক বাসার বাইরে। ফোন দিল শরীফ ভাই। উনি এবং জিয়া ভাই যাচ্ছেন গাজীপুর, শ্রীপুর। শরিফ ভাই এর বাসায়। আমি যাব কিনা জাজ্ঞাসা করতেই এক কথায় রাজি হয়ে গেলাম। দৌড় দিলাম চৌরাস্তা। সেখানেই দেখা হবে উনাদের সাথে।

আমি চৌরাস্তা পৌছাবার মিনিট দুয়েক আগেই উনারা পৌঁছেছেন। দুজনের হাতেই বড় বড় ব্যাগ। ব্যাগ ভর্তি কাপড় আর অনেক দিন পর বাড়ি যাচ্ছিলেন দেখেই বোঝা যাচ্ছিল। আমার চোখ আটকে গেল জিয়া ভাই এর হাতে দেখা ব্যাগের দিকে।

জিয়া ভাই এর সাথে আমার দ্বিতীয় দেখা। তখনো খুব বেশি খাতির জমেনি। শরিফ ভাই এর সাথে আগে থেকেই পিতলা খাতির।

জিজ্ঞাসা করলাম কিসের ব্যাগ এটা। “ভেষজ ওষুধ” শরিফ ভাই এর সহজ সরল উত্তর। আমার সন্দেহ হলো। শরিফ ভাই প্রাকৃতিক ডাকে সারা দিতে গেলেন আমি আর জিয়া ভাই কে দাড়াতে বলে।

এবার জিয়া ভাইকে জিজ্ঞাসা করলাম ব্যাগে কি? “দই”। জিয়া ভাই তখনো আমার সম্পর্কে খুব একটা ধারণা রাখে না। উল্লেক্ষ্য জিয়া ভাই এর বাসা বগুড়া। তিনি এই দই সুদূর বগুরা থেকে গাজীপুর নিয়ে এসেছেন, শরিফ ভাইএর বাসায় নিয়ে যাবেন বলে।

দই জানতে পেরেই আমি পাশে ডিম বিক্রি করে দোকানে দৌড় দিলাম। একটা চামচ নিয়ে ফিরলাম। প্যাকেট কগুলে ২ পাতিল দই ফটাফট শেষ করে দিলাম। ২ পাতিল ই ছিল।

এর মধ্যে শরিফ ভাই ফিরে এলেন। মাথায় হাত দিয়ে তাকিয়ে রইলেন জিয়া ভাইএর দিকে। আমার দিকে তাকায়া কোন লাভ নাই উনি জানেন।

যাই হোক, এবার যাওয়ার পালা। নাহ, জিয়া ভাই যাবেন না শরিফ ভাই এর বাসায়। উনি মাইন্ড করেছেন। গত ২ বছর যাবত কথা চলতেছিল জিয়া ভাই দই নিয়ে শরিফ ভাই এর বাসায় যাবেন। বাসার সবাই অপেক্ষা করচ্ছিল দই এর জন্য।

যাই হোক, অনেক বুঝা বুঝি, অনেক রিকোয়েস্ট এর পর জিয়া ভাই রাজি হলেন শরিফ ভাই এর বাসায় যেতে। ২ ঘন্টার বাস জার্নিতে কোন কথা বল্লেন না আমার সাথে। খুব রাগ।

বাসায় ঢুকার আগে আস্তে করে বল্লেন, “লাবিব, তোমার কমনসেন্স নাই”। আমি হো হো করে হেসে উঠলাম। বল্লাম, “আমার কমনসেন্স আছে। কিন্তু কাজে লাগাই না”।
“তুমি তো দই টা বাসায় আসার পর ও খাইতে পারতা” জিয়া ভাই এর রিপ্লাই।
“দেখেন ভাই, বাসায় আসলে যেই ছোট বাটিতে অল্প একটু দিত, আমার মন ভরত না। আর খাওয়া যা ঠিক হয় নাই, এইটা আমি বুঝি। এর মানে আমার কমনসেন্স আছে”। জিয়া ভাই রাগে আর কথা বলেন না।

যাই হোক, এর পরে আরো অনেক অনেক বার দেখা হয়েছে জিয়া ভাই এর সাথে। প্রায়ই কথা হয় ফোনে। দই এর কথা উঠে মাঝে মাঝে। আর খাতির টা আগের থেকেও অনেক বেশিই হয়ে গেছে এখন।

২০৬০ টি সর্বমোট হিট ২ টি আজকের হিট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *