relativity

গল্পঃ আপেক্ষিকতা

হাসলে সামনের উপরের পাটির শেষের উশৃঙ্খল দাঁত দুটো দেখা যায় আল্পনার। যাকে আমরা সাধারণ বাংলায় গেজা দাঁত বলি। অস্বাধারণ লাগে তখন। মন চায় হাজার বছর অপলক দৃষ্টিতে এই হাসির দিকে চেয়ে থাকি। তার হাসির দিকে, তার টোল পরা গালের দিকে, তার মায়াবি চোখের দিকে। আপেক্ষিকতা এর সূত্রটা যেন আল্পনাকে নিয়েই সৃষ্টি – কথাগুলো এক নিশ্বাসে বলে হাফ ছাড়লেন আরিফ ভাই। ক্ষনিকের জন্য চুপ হয়ে গেলেন। নিজে ভাবচ্ছেন নাকি আমাকে কিছু বলার সুযোগ দিলেন বোঝা যাচ্ছিল না।

মাধবের দিঘীর ঘাটে বিড়ি ফুকতে ফুকতে কথা হচ্ছিল আরিফ ভাইয়ের সাথে। সামনে শান্ত পানি। গরম বাতাসগুলো যেন পানির ঘষায় ঠান্ডা হয়েই স্পর্ষ করচ্ছিল আমাদের। দিঘীর ওপারের ল্যাম্পোষ্টের আলোর পানিতে প্রতিফলিত হয়ে পরিবেশটা আরো রোমান্টিক করে তুলচ্ছিল। মাথা কাজ করচ্ছে না আমার। চিন্তার অনেক গভীরে যেয়ে কোথায় যেন বার বার হাড়িয়ে যাচ্ছিলাম। সত্যি আজকের মালটা অনেক ভালো ছিল। ফ্রেশ একটা পিনিক। কুষ্ঠ জিনিসটা আসলেই চরম। গাজার মধ্যে কুষ্ঠই রাজা। ব্যাপারটা আগে জানা থাকলেও আজই প্রথম বারের মত ফীল করতে পারচ্ছিলাম।

ঐ… কারেন্ট আইছে। বাড়িতে যাবি না? পেছন থেকে ডাক দিল আকরাম। কারেন্ট !! তাহলে এতক্ষন কিসের লাইট দেখলাম আমি? সত্যি, আজকের মালটা চরম ছিল।

(চলবে)

২৫৩৭ টি সর্বমোট হিট ২ টি আজকের হিট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *