lalakhal

ট্যুর প্ল্যান – রাতারগুল, বিছানাকান্দি, জাফলং, লালাখাল, সংগ্রামপুঞ্জি ২৭০০ টাকা

অনেকেই সিলেট ট্যুরপ্ল্যান চায়, কিভাবে গেছি, কত খরচ পরছে ইত্যাদি জানতে চায়। তাই আজকের এই সিলেট ট্যুর প্ল্যান। এখানে কভার করব জাফলং, চা বাগান, তামাবিল, রাতারগুল, বিছানাকান্দি, লালাখাল, সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণা ইত্যাদি

গ্রুপ সাইজঃ ৫ জন। খরচ কমানোর জন্য ৫ জন ধরে নিলাম। গ্রুপ সাইজ ৫ এর বেশি অথবা কম হলে খরচ বাড়বে। কারণ, একটা সিনজি তে ৫ জন সহজে বসতে পারে।

ধরে নিলাম, ভোর সকালে আপনি সিলেট পৌছে গেছেন। সিলেট কিভাবে পৌছাবেন আপনার ব্যাপার। ট্রেনে অথবা বাসে।

প্রথম দিন

আমাদের রাতারগুল বিছানাকান্দি ভ্রমণ ভিডিও এখানে পাবেন।

যাতায়াতঃ মাজার গেট থেকে রাতারগুল আর বিছানা কান্দির জন্য সিএনজি ভাড়া চাবে ১৫০০ থেকে ২০০০। ধরে নিলাম ২০০০ এ রাজি হয়েছেন। জনপ্রতি ৪০০ টাকা। এই সিএনজি মাজার গেট থেকে নিয়ে রাতারগুল ও বিছানাকিন্দি তে ঘুরের সময় সারাদিন অপেক্ষা করে আপনাদের আবার মাজার গেটে নামিয়ে দিবে।

রাতারগুল নৌকা ভাড়াঃ চাইবে ১৫০০ থেকে ৩০০০ টাকা। ওখানে আমার পরিচিত নৌকা ড্রাইভার আছে, তাকে আগে থেকেই ফোন দিয়ে গেলে পরবে ৭০০ টাকা। জনপ্রতি পরে ১৪০ টাকা। আমাদের ট্যুরে গিয়ে তার সাথে পরিচয়। বিল্লাল 01790316735

বিছানাকিন্দি নৌকা ভাড়াঃ  সেখানেও এমন অদ্ভুত নৌকা ভাড়া চাবে। ইঞ্জিন নৌকা। দরদাম করতে হবে। ওখানে আমার পরিচিত কেউ নাই। ওখানে আমাদের ভাড়া পরছিল ৮০০। তবে বেদম বার্গেইন করার পরে। ধরে নিলাম ঠকে গিয়ে ১২০০ তে রাজি হয়েছেন। জনপ্রতি ২৪০ টাকা। 

রাত যাপনঃ হোটেল ভাড়াঃ ২ রুম ৬০০ + ৬০০ = ১২০০, ৫ জনে ভাগ হয়ে জনপ্রতি ২৪০ টাকা। মাজারের সামনে অনুপম হোটেল নামে হোটেল আছে, বেশ গুছানো। এখানকার ভাড়া ৪০০ থেকে ৬০০ এর মত। প্রতি রুমে ডাবল বেড। আরো অনেক ভাল ও খারাপ হোটেল আছে। ঢু মেরে দেখতে পারেন। শুক্রবার ভাড়া একটু বেশি রাখে।

মাজার ভ্রমণঃ যেহেতু মাজারের সামনে হোটেল নিলেন। তাই মাজারের রাতের সৌন্দর্য এবং দিনের সৌন্দর্য কোনটাই মিস হবে না। এর জন্য এক্সট্রা খরচ ও নাই।

 

দ্বিতীয় দিন

আমাদের আগুন পাহাড়, জাফলং, সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণা আর লালাখান ভ্রমণের ভিডিও এখানে পাবেন।

যাতায়াতঃ মাজার গেট থেকে সিএনজি তে জাফলং, চা বাগান, লালাখাল, আগুন পাহাড়,  তামাবিল বর্ডার ঘুরে আসার জন্য ভাড়া চাবে ২৫০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকা। আকাশ থেকে পরার কিছু নাই। সাধরণত ভাড়া ১৫০০ থেকে ২০০০। ধরে নিলাম আপনি দরদামে খুব কাচা তাই ২৫০০ তেই রাজি হয়ে গেলেন।জনপ্রতি ৫০০ টাকা।

লালাখাল নৌকা ভাড়াঃ লালাখাল ঘাটে নৌকা ভাড়া খুব বেশি না। ১ ঘন্টা ঘুরার জন্য ৬০০ থেকে ১০০০ নিতে পারে, ইঞ্জিন নৌকায়। বৈঠা নৌকা নিলে আরো কম। জিরো পয়েন্ট ঘুরতে পারেন, অথবা লালাখালের ঐ পারে চা বাগান আছে, সেটাও দেখে আসতে পারেন, যদি সময় থাকে। ধরে নিলাম ১০০০ এই ভাড়া নিতে হয়েছে,  জনপ্রতি ২০০ টাকা।

খাবারঃ ২ দিনের ৬ বেলা খাওয়ার আনুমানিক খরচ জনপ্রতি ৭০০ টাকা ধরে নিলাম। পাশাপাশি ভাংতি খরচ/রিক্সা/চা/টা খরচ ধরলাম ৩০০ টাকা জনপ্রতি ১০০০ টাকা!! 

জনপ্রতি মোট খরচঃ ২৭২০ টাকা।

নোটঃ জাফলং এ কোন নৌকা ভাড়া করতে হয় না আসলে। ১০ টাকা করে পার হওয়া যায়। তবে অনেকেই এটা না জানার কারণে বিছানাকান্দির মত হাজার টাকা দিয়ে নৌকা রিজার্ভ করেন। এটা করবেন না। ১০ টাকা দিয়ে ওপার যাবেন, আবার ১০ টাকা দিয়ে এপার আসবেন। রাস্তায় আগুন পাহাড়,  চা বাগান, লালাখাল এর রাস্তা পরবে। সিএনজি মামা কে আগেই বলে দিবেন, ঐ স্পট গুলো ঘুরিয়ে এরপর যাতে জাফলং নিয়ে যায়। তাহলে সংগ্রামপুঞ্জি ঝর্ণায় ভাল সময় পাবেন। জাফলং এ নামলেই বাচ্চা বাচ্চা গাইড পাবেন। ওরা ১০০ টাকা পেলেই খুশি। বেশ ভাল সার্ভিস দেয়। অনুগ্রহ করে ওদের সাথে বাজে আচরণ করবেন না। লালাখাল এর নীলাভ সবুজ পানি দেখে কেউ পকেটে মোবাইল নিয়েই ঝাপ দিবেন না। যেটা আমি করেছিলাম।

আমি চেষ্টা করেছি সব কিছুর খরচ মোটামুটি বেশি করে ধরতে, যাতে ট্যুরে যেয়ে বিপদ না হয়। তারপরেও ট্যুরে সাথে এক্সট্রা কিছু সেফটি টাকা সাথে রাখা ভাল। সিলেটে বেশ বৃষ্টি হয়। ছাতা রেইনকোন সাথে রাখা জরুরী।

৩৬৭১ টি সর্বমোট হিট ৪৫ টি আজকের হিট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *